প্রচ্ছদ জাতীয় কুড়িগ্রামে বন্যার পানি বৃদ্ধিতে সাড়ে ৯ লাক্ষ মানুষ ভোগান্তিতে

কুড়িগ্রামে বন্যার পানি বৃদ্ধিতে সাড়ে ৯ লাক্ষ মানুষ ভোগান্তিতে

কুড়িগ্রামে আবারও নতুন করে বাড়তে শুরু করেছে ব্রহ্মপুত্র ও ধরলা নদীর পানি। বৃহস্পতিবার (২৫ জুলাই) সকাল থেকেই ধরলা নদীর পানি ব্রিজ পয়েন্টে ২৭ সে.মি. বৃদ্ধি পেয়ে বিপদসীমার ৭৩ সে.মি এবং ব্রহ্মপুত্র নদের পানি চিলমারী পয়েন্টে ১০ সে.মি. বৃদ্ধি পেয়ে ৩৬ সে.মি. ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এরফলে ৫০টি গ্রামের নিম্নাঞ্চল নতুন করে প্লাবিত হয়েছে। ডুবে গেছে ঘর-বাড়ি ও রাস্তাঘাট। কুড়িগ্রাম-সদরের বাংটুর ঘাট থেকে ফুলবাড়ী বাঁধের উপর পাকা রাস্তাটি বাংলাবাজার নামক স্থানে ভাঙনের মুখে পড়েছে। বাঁধটি ভাঙলে ২০-৩০টি গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হতে পারে। পাশাপাশি টানা বৃষ্টির ফলে জনজীবনে নেমে এসেছে চরম ভোগান্তি।

চর বড়লই গ্রামের বাসিন্দারা জানান, বাঁধের রাস্তাটি ভেঙে যাওয়ার উপক্রম হওয়ায় বালুর বস্তা বাঁশের বল্লা দেয়া হয়েছিলো। পানির প্রবল চাপে তাও ধসে গেছে। এখন যেকোন মুহূর্তে রাস্তাটি ভেঙে যেতে পারে। আমরা গ্রামবাসীরা নিজেদের উদ্যোগে বাঁধটি রক্ষার চেষ্টা করলেও পানি উন্নয়ন বোর্ড বা প্রশাসন কোন সাড়া দিচ্ছে না।

তবে কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুল ইসলাম ও ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাছুমা ইয়াসমিন জানান, বাঁধটি রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হবে।

বন্যা কবলিত এলাকায় দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানি আর শুকনো খাবারসহ গো-খাদ্যের তীব্র সংকট। টানা দু’সপ্তাহের বন্যায় জেলার ৯টি উপজেলার ৯ লাখ ৫৮ হাজার ৩২৮জন মানুষ পানিবন্দী রয়েছে। প্রায় ২০ হাজার হেক্টর ফসলী জমি পানিতে ডুবে নষ্ট হবার উপক্রম।

জেলা প্রশাসন থেকে ত্রাণ কার্যক্রম শুরু করা হলেও সেভাবে মাঠে নামেনি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো। ফলে প্রত্যন্ত এলাকায় এখনও পৌঁছায়নি ত্রাণ।

সোনারগাঁয়ে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত

দ্যা বাংলা এক্সপ্রেস ডটকম: নারায়ণগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সেবা প্রদান প্রতিশ্রুতি বিষয়ে সেবা গ্রহীতা/ অংশীজনদের অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
error: Content is protected !!